gorbhabosthar-troimashikkale-jei-5ti-khadyo-eriye-chola-proyojon

 

১. ক্যাফিন যুক্ত খাদ্য

আপনার খাদ্য এবং পানীয়ের পরিমাণ সীমিত করা উচিত যা উচ্চ পরিমাণে ক্যাফিন ধারণ করে। কারণ ক্যাফিনে কিছু উপাদান রয়েছে যা আপনার শরীরেকে লোহা শোষণ করা থেকে বাধা দেয় ও যার ফলে আপনার শরীরে দুর্বল হয়ে পড়ে।

এইসময় আপনার শরীরকে কার্যকরীভাবে কাজ করার জন্য আয়রন খুবই অপরিহার্য এবং গর্ভাবস্থায় তার প্রয়োজনীয়তা আরও বেড়ে যায় যেহেতু আপনি আপনার মধ্যে অন্য একটি জীবনকে পুষ্ট করছেন। অতএব, আপনার লোহা বিপর্যস্ত হতে পারে এমন কিছু খাওয়া উচিত নয়।

এটিও দেখ গিয়েছে যে, প্রয়োজনীয় পরিমাণের চেয়ে বেশি ক্যাফিন ব্যবহার করে মহিলারা তাদের তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময় বা পরে গর্ভপাত বা মৃত সন্তান প্রসবের মত ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার স্বীকার হতে পারেন। তারা একটি উন ওজোন বা কম বিকাশমান শিশু জন্ম দিতে পারেন। সুতরাং, যদি আপনি কফি আসক্ত হন এবং খুব শীঘ্রই মা হতে যাচ্ছেন, আমরা আপনাকে বলার জন্য দুঃখিত কিন্তু এটি ছাড়তেই হবে।

 

২. পেঁপে

কিছু ফল গর্ভবতী মহিলাদের জন্য একটি কঠোর “না”, বিশেষ করে সেসব মহিলাদের জন্য যাদের নির্ধারিত তারিখ কাছাকাছি। পেঁপে তার মধ্যে একটি হতে পারে, বিশেষত যদি এটি কাঁচা হয়। পেঁপেতে ল্যাটেক্স নামে একটি উপাদান রয়েছে, যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই গর্ভপাতের প্রধান কারণ।

অনেকে বলে থাকতে পারেন যে পাকা পেঁপে খাওয়াই যায়, কিন্তু আমরা পরামর্শ দিয়ে থাকি যে সেটাও খাবেননা কারণ তাতেও গ্যাস ও অন্যান্য পেটের সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে।

 

৩. কিছু বিশেষ ধরণের মাছ এবং বিশেষত কম ভাজা মাছ

এটি পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে গর্ভাবস্থায় একটি মহিলার জন্য মাছ খুব ক্ষতিকারক। এর পিছনে কারণ হল যে মাছের উপাদানে পারদ রয়েছে, যা শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য খুবই খারাপ। যেমন হাঙ্গর, রাজা ম্যাকেরল, তলোয়ারফিশ বা টাইলফিশের মতো মাছের মধ্যে সর্বোচ্চ পরিমাণ পারদ রয়েছে। তবে টুনা মাছ অপেক্ষাকৃত নিরাপদ।

আমরা কোন রকম ঝামেলা এড়াতে আপনাকে সাধারণভাবে মাছ থেকে দূরে থাকতেই পরামর্শ দিই। আমরা বুঝতে পারি যারা সীফুড প্রেমী তাদের জন্যে এটি খুব কষ্টের, , কিন্তু এটি আপনার নিজের ভাল জন্যে।

 

৪. কড়া করে ভাজা খাদ্য

গর্ভবস্তার সময় একটি মহিলার অনেক রকমের চাহিদা বেড়ে যায় এবং আমরা জানি যে নারীরা জাঙ্ক ফুডের জন্য এই সমযয়ে বেশি বায়না করে। এখন, আমরা এসব খাদ্যের সুস্বাদু অভিজ্ঞতা অস্বীকার করছি না তবে আমরা পরামর্শ দিচ্ছি যে আপনার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময় অম্লতা বা অন্যান্য গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যার মতো সমস্যাগুলি এড়ানো থেকে দূরে থাকতে গেলে এসব খাদ্যের থেকে দূরে থাকাই ভাল।

পরিবর্তে, একটি সুবর্ণ গর্ভাবস্থার জন্য ফোলিক অ্যাসিড উচ্চ যে সবুজ সবজি এবং ফল খান। তাতে আপনার কোন বা সর্বনিম্ন জটিলতা থাকার সম্ভাবনা থাকবে।

 

৫. ক্যান বন্দি খাদ্য

ক্যান বন্দি খাদ্য বর্তমানে আমাদের জীবন সহজে করে দিয়েছে। আশ্চর্য হ’ল আপনি যখন আপনার স্থানীয় সুপারমার্কেটে মুদি দোকান কিনবেন তখন ফ্রিজ করা নাগেট, সসেজ বা নুডল্স দেখলে নিজেকে থামাতে পারবেননা। কিন্তু, আপনার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময়, এই খাবার সামগ্রীগুলি আপনার জন্য একটি বড় “না”।

কারণ এই খাবারগুলি সংরক্ষণ করার জন্যে বিপুল পরিমাণ কিছু ধাতু দেওয়া হয় যার মধ্যে ব্যাকটেরিয়া থাকে। এগুলি আপনার এবং আপনার শিশুর উভয়ের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। এই ক্যানগুলির মুখে বিসফেনল এ (বিপিএ) নামে একটি উপাদান রয়েছে, যা অন্তঃস্রাবের কার্যকলাপকে প্রভাবিত করে, বিশেষ করে যদি আপনি গর্ভবতী হন।

সুতরাং, দুর্বলতাকে এড়িয়ে এসব খাদ্য থেকে দূরে থাকুন।

আমরা জানি যে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন, বিশেষ করে যদি আপনি বড় খাদ্যরসিক হন, তবে এটি কেবল কয়েক দিনের জন্য। মহিলারা মনে রাখবেন, ধৈর্য সাফল্যের চাবিকাঠি। সুতরাং, ধৈর্য ধরুন এবং নিজেকে ভালভাবে যত্ন নিন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: