sontan-jonmer-por-ki-ki-onusoron-korben-ki-ki-korben-na-sei-somporkito-5ti-totho-babycare-bangla

জন্ম দেওয়ার পরবর্তী সময় শিশু এবং মা উভয়ের জন্য একটি কঠিন চাপের সময়। মায়ের জন্য চিকিত্সা এবং সংক্রমণের ঝুঁকি এবং এই ধরনের বিষয়গুলিকে সহজতর করার জন্য সবকিছু সম্ভব করার চেষ্টা করা গুরুত্বপূর্ণ। এখানে কয়েকটি উদাহরণ আছে যা এইটি নিশ্চিত করতে সহায়তা করতে পারে।

১.ট্যানপুংস বেবহার করবেন না

এই সময় ট্যানপুংস ব্যবহার করলে সংক্রমণ হতে পারে। কারণ আপনার যোনি এখনো পর্যন্ত সুস্থ হয়নি, জন্ম দেবার সময় সৃষ্ট ক্ষতর মধ্যে ঢোকানো অনুচিত।

২. চার ঘন্টা পর পর আপনার স্যানিটারি ন্যাপকিন পরিবর্তন করুন

একই স্যানিটারি ন্যাপকিন দীর্ঘ সময় পরিধান করে থাকলে সংক্রমণ হতে পারে এবং ক্ষত সৃষ্টি হতে পারে, তাই নির্দিষ্ট সময় অন্তর এটি পরিবর্তন করার একটি ভাল ধারণা।

৩.শারীরিক ভাবে মিলিত হবেন না

আপনার রক্তপাত বন্ধ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। কারণ আপনার প্লাসেন্টা এখনো ক্ষত হয়ে আছে।এখনো সুস্থ হয়নি এবং এটি সুস্থ হওয়ার আগে যৌনতা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।

৪.আসন করা অভ্যেস করুন

আসন করা সন্তান জন্মের পরে খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি পিঠের বেথা কমাতে সাহায্য করে। এটি পেরিনিয়ামের চাপও সহজ করে দেয়, যা একজন মহিলার মলদ্বার ও স্ত্রীযোনির মধ্যে অবস্থিত।

৫. নরম বালিশের ওপর বা প্যাডেড রিং এর ওপর বসতে পারেন

একটি বালিশের উপর বসা আপনার পেরিনিয়াম এবং আপনার জামাকাপড় মধ্যে ঘর্ষণ কমাতে সাহায্য করে। এটি এলাকায় কোন ফোলাভাব এবং কাটা অংশ নিরাময় সাহায্যকরে। একটি বালিশ উপর বসা এছাড়াও ব্যথা কমাতে এবং মহিলাদের আরামদায়ক ভাবে বসতে সাহায্য করতে পারে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: