bhrun-theke-soddojato-apnar-sisur-jatra-pregnancy-tips-bangla

 

আপনার ও আপনার শিশুর এক সাথের যাত্রা শুরু হয় সেইদিন থেকে যেদিন আপনি জানতে পারেন আপনি গর্ভাবতী এবং একমাত্র আপনিই তার সাথে ঘনিষ্ঠ ভাবে জড়িত। কিন্তু এটাও নিশ্চই মনে হয় যে শিশু

আপনার ভেতরে এত বড় হয় কিভাবে ? জানতে ইচ্ছে করছে? পড়ুন তবে….

১. গর্ভাধান

স্পার্ম ও ওভামের মিলন হয়ে গেছে। বাড়িতে পরীক্ষা করেই বুঝতে পারবেন আপনি গর্ভাবতী কি না।প্রথম তিন মাস সাবধান থাকবেন কেননা এই সময় গর্ভপাতের সম্ভাবনা থাকে।

২. প্রথম মাস

সেল ভাগ হয়ে শিশুর বুক, হাত ও মাথা তৈরী হয়। ভ্রণ এখন কুণ্ডলিত শিশুর আকার নিয়েছে।

৩.দ্বিতীয় মাস

শিশু এখন ১ ইঞ্চি লম্বা! এই মাস খুব সাবধান থেকে পুষ্টিকর খাবার খাবেন।

৪. তৃতীয় মাস

শিশুর এখন ২-৩ ইঞ্চি আকার। হাত ও পায়ের আঙ্গুল তৈরী হয়ে গেছে ও এখন থেকেই তাদের নিজস্ব চিহ্ন আছে। একটু নড়াচড়া বোধ করতে পারেন শিশুর হালকা হৃত্স্পন্দন শোনা যাবে।

৫. চতুর্থ মাস

এই মাসে আপনার জরায়ুর আকার বাড়বে কেননা শিশুর আকার ও ওজন দুটি বাড়ছে। শিশুর গঠন শক্ত হবে ও হৃত্স্পন্দন আরো জোরে হবে। এখন শিশুর ওজন ১৪২ গ্রাম ও আসতে আসতে আপনার পেট বড় হচ্ছে।

৬. পঞ্চম মাস

মাথা থেকে পা পর্যন্ত এখন ২৭ সেন্টিমিটার লম্বা। চোখের পাতা তৈরী হয়ে গেছে ও এই মাসে কটা লাথি খেতে পারেন।

৭. ষষ্ঠ মাস

আপনি আল্ট্রাসাউন্ড করার জন্য প্রসূত, প্রথম আল্ট্রাসাউন্ড এর ছবি তুলে রাখুন।

৮. সপ্তম মাস

৬০০ গ্রাম ওজন, গঠন অনেকটা শক্ত হয়ে এসেছে এবং লাথি ও ধাক্কার জোড় বেড়ে যাবে।

৯. অষ্টম মাস

শিশু পুরোপুরি তৈরী প্রসব যদি আগেও হয় তো খেয়াল রাখলে শিশু ঠিক থাকবে। ওজন প্রায় ২ কেজি।

১০. নবম মাস

আপনি প্রসবের জন্য তৈরী এবং তাই ডাক্তার আপনাকে প্রসবের দিন বা সময় জানিয়ে দেবে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: