notun-mayer-chul-abong-toker-jotno-neyar-12-ta-upay-mom-care-tips-beauty-bangla

 

গর্ভপাতের পরের অবস্থা অনেক চ্যালেঞ্জযুক্ত হতে পারে এবং নতুন ধরণের সমস্যা নিয়ে আসে। শিশুর বা বাচ্চাদের যত্ন নেওয়া এক বড় কাজ। এর সাথে নিজের যত্ন নেয়াটাও খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চুল পড়া, প্রসারিত চিহ্ন এবং চামড়া বেরিয়ে আসা এসবের চাপ যথেষ্ট থেকে থাকে।কিন্তু চিন্তা করবেন না, এখানে গর্ভপাতের পরে কিভাবে আপনার নিজের খেয়াল রাখবেন সেই নিয়ে আলোচনা করা হলো।

১. সৌন্দর্য ঘুম

আমরা জানি আপনার দিন ও রাতের ক্লান্তি কতটা হতে পারে। বেশিরভাগ শিশু এর সময়সূচী আপনার স্বাভাবিক সময়সূচী সঙ্গে মিলিত হবে না এবং আপনি আপনার বাচ্চার সঙ্গে খেলতে বা তার সাথে সময় কাটিয়ে উঠতে পারবেনা। এটি হতাশাজনক এবং ক্লান্তিকরও। যাইহোক, আপনার ঘুম পূর্ণ করতে পরিবারের বা বন্ধুদের সাহায্য নিন এবং ৬-৭ ঘন্টা ঘুমান। এটি চাপ কমাতে সাহায্য করবে এবং আপনাকে আরো চমকদার করে তুলবে।

২. অলৌকিক পানীয় পান

এই পৃথিবীতে সেরা পানীয় নিঃসন্দেহে জল। এতে জাদু আছে কারণ এর হাইড্রেট্ট আপনার ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করে, এটি শুষ্ক হওয়া থেকে রক্ষা করে এবং চমকদার ফিরিয়ে নিয়ে আসে। অবশই জল চাপ হ্রাস করতে সাহায্য করে এবং কর্কশ উপসর্গও উপযোগী।

৩.যা খাচ্ছেন সেটা যাচাই করে নিন

সন্তান জন্ম দেয়ার পরে, আপনার শরীরের আরেকবার পুনর্জন্ম হয়।তাই এই সময়ে আপনার পুষ্টিকর খাদ্য খাওয়া খুবই প্রয়োজনীয় এবং বিশেষ করে যখন আপনি বুকের দুধ খাওয়ান তখন আপনার মধ্যে যথেষ্ট পরিমানে ভিটামিন, খনিজ পদার্থ, ফাইবার, কার্বোহাইড্রেট এবং তরল প্রয়োজন। প্রতি দুই ঘন্টা অন্তর খান এবং প্যাকেটের খাবার বর্জন করুন। এইটা খুব সহজ এবং ভালো উপায়।

৪. স্বাস্থ্যবিধি

আপনার ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি এবং সেইসাথে আপনার আশপাশের স্বাস্থ্যবিধি যত্ন নেওয়া আপনার কর্তব্য। এই সময়ে আপনার ইমিউনিটি র সুরক্ষা কম হতে পারে, তাই আপনাকে আপনার বিশেষ যত্ন নিতে হবে যাতে সংক্রমণগুলি গ্রহণ না করে।

৫. মৌলিক ত্বকের যত্ন

আপনার চামড়া যত্ন নিতে মৌলিক পদক্ষেপ সম্পর্কে বিশেষভাবে নজর দিতে হবে।মেকআপ অবস্থায় কখনও ঘুমাবেন না।পাশাপাশি, নিজেকে স্বাস্থ্যবান ও সুখী রাখার জন্য নিয়মিতভাবে আপনার ত্বক পরিষ্কার করা উচিত পরিষ্কার করা যেমন ময়শ্চারাইজ করা এবং আপনার ত্বকে টোন লাগানো ইত্যাদি।

৬. চুল পড়াকে বিদায় জানান

এই সময় চুল পড়া খুব স্বাভাবিক।কোনো চিন্তা করবেন না কারণ চিন্তা আরো একটি চুল পড়ার অন্যতম কারণ।আপনার চুলের জন্য একটি হালকা শ্যাম্পু ব্যবহার করুন এবং নারকেল তেল, বাদাম তেল এবং মরিচ তেল মিশ্রণ করে আপনার চুলে লাগান।আপনি দই ও চুলের মাস্ক হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন।

৭. ভয়াবহ ব্রণ

আপনার ত্বক পরিষ্কার রাখা সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ জিনিস মনে রাখতে হবে এটি যেন সবসময় পরিষ্কার থাকে। দ্বিতীয়ত, হালকা ময়শ্চারাইজার ব্যবহার করে দিনে দুইবার আপনার মুখ ধুয়ে নিন এবং পরবর্তীতে হালকা কোনো ক্রিম প্রয়োগ করুন।আপনি প্রভাবিত এলাকায় শুকনো এলোভেরা জেল বা গোলাপজল প্রয়োগ করতে পারেন।

৮. চর্মাদির স্বাভাবিক রং পরিষ্কার করুন

বাইরে যাওয়ার আগে সবসময় সান্স ক্রিম ব্যবহার অভ্যাস করুন। পিগমেন্টের পরিত্রাণ পেতে আপনি পাকা পেঁপে বা মধু ও লেবুর মিশ্রণও প্রয়োগ করতে পারেন।

৯. আপনার প্রসারিত চিহ্ন বন্ধ করতে চেষ্টা করুন

প্রসারিত স্থায়ী বলে মনে হয় কিন্তু সেটি সঠিক ত্বক যত্নের সাথে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে। বাজারে অ্যান্টি-স্ট্রাক মার্ক ক্রিমগুলি উপলব্ধ রয়েছে যা আপনাকে এই চিহ্নগুলি থেকে পরিত্রাণ পেতে সহায়তা করতে পারে, আপনি যোগ ক্লাস এবং ম্যাসেজে যেতে পারেন এবং নিয়মিতভাবে প্রভাবিত এলাকায় চামড়ার ময়শ্চারাইজিং ব্যবহার করতে পারেন।

১০. চোখের নিচে কালো অংশকে উজ্জ্বল করুন

চোখের অধীন ত্বক খুব সংবেদনশীল এবং নমনীয়,খুব সহজেই ক্লান্তি বোঝা যেতে পারে।ফলস্বরূপ, অন্ধকার অংশটি বেশি করে দেখা যায়।বিছানায় যাওয়ার আগে প্রতিদিন আপনি চোখের নিচের অংশে বাদাম তেল আলগাভাবে ম্যাসেজ করতে পারেন। আপনি সবুজ চা ব্যাগ ব্যবহার করতে পারেন এবং ঘুমানোর সময়ে আপনার চোখের ওপর এটিকে ব্যবহার করতে পারেন।এটি আপনার পেশী শিথিল করবে এবং আপনার ত্বক উজ্জ্বল করবে।

১১. রাসায়নিক পদার্থ থেকে সতর্ক থাকুন

প্রাথমিকভাবে রাসায়নিক ভাবে তৈরী করা ক্রিম, প্রসাধনী বা চুলের রং থেকে দূরে থাকুন কারণ এগুলো আপনার চামড়াকে আরো নিস্তেজ এবং জ্বালাময় করতে পারেন।

১২. ডাক্তারের সাথে কথা বলুন

ত্বক এবং চুলের দুর্বলতা মূলত কারণ পুষ্টির অভাব।আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন, আপনার ত্বক এবং চুলের সমস্যাগুলির সাথে কাজ করতে সাহায্য করতে পারে এমন সম্পূরক কোর্স শুরু করুন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: