gorbhobotir-opor-grohoner-provab

ভারতে সূর্য গ্রহণ বা চন্দ্র গ্রহণ নিয়ে অনেককিছু উপলব্ধি আছে যেমন, এটা করবেন না, এটি খাবেন না, বেরোবেন না, গ্রহণ দেখৱেন না, ইত্যাদি কারণ এটি মানুষের উপর নেতিবাচক প্রভাব রাখে। এটি একটি গর্ভবতী মহিলার উপরও খারাপ প্রভাব রাখতে পারে কারণ তিনি তার শরীরে একটি জীবনকে আশ্রয় প্রদান করেন। আমরা আপনাকে গ্রহন এবং তাদের পিছনে সত্য সম্পর্কিত ধারণাগুলি বলতে চাই।

ভারতবর্ষে গর্ভবতীকে গ্রহণের সময় কি উপদেশ দেওয়া হয়?

১. এইসময় তাদের ঘরের ভিতরে থাকার জন্য বলা হয়। তাদেরকে সরাসরি গ্রহণ দেখতে নিষেধ করা হয়, কারণ এগুলিতে তাদের বাচ্চার জন্ম সমস্যা হতে পারে। এর মানে হল, শিশুটির কোন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ আলাদা হয়ে যেতে পারে।

কিন্তু আপনি সানগ্লাস পরে গ্রহণ দেখতে পারেন।

২. তাদের খাবার তৈরি করা বা খাওয়া থেকে নিষেধ করা হয় কারণ এটি গর্ভের শিশুর উপর ক্ষতি করতে পারে।

৩.চন্দ্র গ্রহনের সময় ধারালো জিনিস যেমন ছুরি, কাঁচি এবং সুঁচ থেকে দূরে থাকতে বলা হয় কারণ এটির ফলে শিশুর ঠোঁটের আকার খারাপ হয়ে যেতে পারে। এছাড়াও এতে শিশুর শরীরের ওপর দাগ পড়তে পারে।

৪. গ্রহণের সময় জল পান করতে নিষেধ করা হয়. ইটা শুধু গর্ভবতীকেই নয়, যেকোনো মানুষকেই পরামর্শ দিয়ে থাকা হয়।

৫. গ্রহণের সময় যতটা সম্ভব বিশ্রামে থাকতে বলা হয়।

৬. এই সময় জানালায় মোটা পর্দা ঢেকে রাখতে বলা হয়।

৭. গ্রহণ কেটে যাওয়ার পর উষ্ণ গরম জলে স্নান করার নির্দেশ দেওয়া হয়। এর ফলে শরীরের ক্লান্তি ও ব্যথা বেদনা কমে যায়।

এই ছাড়াও, অনেক অন্যান্য ভুল ধারণাগুলি ভারতে প্রচলিত। আপনার মানসিক সন্তুষ্টি যদি থাকে এবং তা যদি ক্ষতিকারক না হয়ে থাকে তাহলে এগুলি অনুসরণ করতে পারেন। এগুলি অনুসরণ করলে আপনার বাড়ির গুরুজনরা খুশি হন এবং আপনাকে একজন সংস্কারই গৃহ বধূ বলে মনে করেন।

তবে, অন্ধভক্তি কোনো বিষয়েই ঠিক নয়। ভেবে চিনতে পদক্ষেপ নেওয়াই যুক্তিপূর্ণ। এটাআপনার ও আপনার শিশুর মঙ্গলের প্রশ্ন।

এই প্রবন্ধটি সকল বন্ধুদের শেয়ার করুন ও আনন্দে থাকুন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: