prosober-por-masik-roktopat-kemon-hobe

এমনিতেই গর্ভাবস্থার সময় শরীরে আপনার ও আপনার শিশুর ওপর দিয়ে যে পরিমান চাপ যায়, তা হয়তো বলার ভাষা নেই। তবে খানেই সব শেষ হয়না।

১. গর্ভাবস্থার আগে

মাসিক এটার ইঙ্গিত যে আপনি গর্ভাবতী নন ও আপনার জরায়ুর টিস্যু ঝরে পড়ছে। গর্ভাবস্তায় রক্তপাত বন্ধ হয়ে যায় বা খুব অল্প হয়। বেশি হলে ডাক্তার দেখানো আবশ্যক!

২. গর্ভাবস্থার পর

যারা শিশুদের স্তনুপান করান না তাদের ৫-৬ সপ্তাহ পর রক্তপাত হয়। যারা কোরান তাদের হয়ত স্তন্যপান যতদিন করাবেন ততদিন হবে না। কিন্তু এই ব্যাপারগুলি প্রত্যেক মহিলার মধ্যে আলাদা! ফলে নিয়মিত ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ রাখবেন।

৩. মাসিক চক্র

প্রসবের পর রক্তপাত বেশি বা কম হতে পারে; এতে চিন্তার কিছু নেই। এক দু মাস নাও হতে পারে, সময় লাগবে। সব কিছু আগের মত হতে যদি খুব বেশিদিন লাগে বা যদি না হয় তবে ডাক্তার দেখাবেন।

৪.ডিম্বস্ফোটন ও মাসিক

ডিম্বাশয় থেকে ডিম্ব ত্যাগ ও রক্তপাত একই সময় না হতে পারে। প্রথম রক্তপাতের আগেই ডিম্বস্ফোটন হতে পারে। তাই মিলন একটু সাবধানে করবেন।

৫. স্বাস্থ্যবিধি

রক্তপাতের সময় নিজেকে খুব পরিষ্কার রাখবেন। ট্যাম্পুনের থেকে ভালো প্যাড ব্যবহার করা কারণ ট্যাম্পুনে জীবানু বাড়তে পারে। শরীরের এত রক্ত হারাবেন, তার জন্য প্রস্তুত থাকুন ও ভালো করে খাওয়া দাওয়া করুন। শরীরের বাড়তি দুর্বলতা থেকে মুক্কতি পাবেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: