nobojato-shishur-budhhi-baranor-kichu-odvut-upay

যেসব বাবা-মা তাদের সন্তানের শৈশবকাল সম্পর্কে কম কথা বলেন, তাঁরা আসলে তাঁদের শিশুকে সেইসময় খুব একটা ভাল করে পর্যবেক্ষণ করেননি এবং যাদের সন্তানদের ব্যাপারে বাবা মায়েরা বেশি বেশি শৈশবকালের গল্প করতে পারেন, মনে করতে হবে তাদেরকে খুব ভাল করে লক্ষ্য করা হয়েছে। শিশুদের সাথে তাদের শৈশবকালের কথা বলার দ্বারা, তাদের অন্যান্য ভাষা এবং তালের মধ্যে পার্থক্য বোঝানো যায় এবং যত তাড়াতাড়ি বড় হয় তত দ্রুত তারা সব কিছু বুঝতে সক্ষম হয় এবং শিখতে শেখে!

যদি একটি বিষয় শিশুদের কাছে খুব ঘন ঘন উচ্চারণ করে থাকেন তবে দীর্ঘকালের জন্য তার পক্ষে মনে রাখা সম্ভব। তাই যদি তাদের একটি বাক্য বলা হয় যেমন “ঘোড়াটি গাড়ি টেনে নিয়ে যায়”, তাহলে তারা তাদের মনে ঘোড়ার একটি ছবি বানিয়ে ফেলে। এই কৌশলই তাদের উৎসাহ দেয় যখন তারা স্কুলে যায় এবং চিন্তা করার ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। আপনার সন্তানকে কিছু শেখানোর সময় মনে রাখবেন আপনি একজন নাগরিক তৈরি করছেন যিনি অন্যদের চিন্তা বুঝতে পারেন এবং ব্যাখ্যা করতে পারেন।

কুকুর এবং বিড়ালের মধ্যে পার্থক্য, ইঁদুর এবং হাতির মধ্যে পার্থক্য এধরণের পার্থক্যগুলো শেখানোর দ্বারা আপনার সন্তানকে বিভিন্ন জিনিসের মধ্যে পার্থক্য করতে শেখান। তবেই তারা সঠিকভাবে নিজের মস্তিষ্কে ওই জিনিসগুলি আঁকতে শিখবে এবং পার্থক্য জিনিসটি বুঝবে। বাচ্চাদেরকে টিভির সামনে বসিয়ে দিয়ে তাদের হাতে প্যাড বা রিমোট ধরিয়ে দিলেই তাদের মস্তিষ্ক বিকাশ ঘটবেনা, বরং তাদের বিকাশে আরো ঘাটতি ঘটতে পারে।

বাবা-মায়েদের তাদের সন্তানদের সাথে কথাবলা উচিত যখন তারা স্কুলের জন্যে তৈরী হয় বা খাওয়া দাও করে বা শিশুকে যখন তারা স্নান করানোর জন্যে প্রস্তুতি নেন। এমন কিছু জিনিস গল্প করা উচিত যেগুলি শিশুরা তাদের কাছ থেকে শিখতে পারে। এর থেকেও বড় হল বাবা-মায়েদের তাদের সন্তানদের সাথে শুধু কথা বলতে হয় বলে কথা বলা উচিত নয়, দেখতে হবে সেগুলি যেন সন্তানসুলভ কথা হয়। অর্থাৎ জেক বলে খেলার ছলে কথা বলা।

সুতরাং, আর অপেক্ষা কেন? আপনার সন্তানের সাথে কথা বলা শুরু করুন এবং এই উপদেশগুলি সকলের সাথে শেয়ার করুন; জানান কথা বলার গুরুত্ব কতটা আপনার শিশুর বুদ্ধি বিকাশে সাহায্য করে।

শিশুর বেড়ে ওঠার সময় কি কি খেলনা তার বুদ্ধির বিকাল ঘটাবে তা জানতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

%d bloggers like this: