আপনি কি আপনার সন্তান কে খুব বেশি চুমু খান?? জানুন কি করছেন

 

মায়েদের কাছে অনুরোধ আপনার সন্তান কে অত্যধিক পরিমানে চুমু খাবেন না এবং কাউকে খেতেও দেবেন না!

ক্রিস্টাল ও তাঁর স্বামী জন গ্রেশ্যাম সম্প্রতি তাঁদের ১৫ দিনের শিশুকে নিয়ে ভয়ানক বিপদে পড়েছিলেন। শিশুটিকে কেউ স্পর্শ করলেই সে চিৎকার করে কাঁদছিল। তার অবিভাবক বুঝে ছিলেন যে তাদের শিশু কোনো সংকটে আছে।

আমরা শিশুকে আদর করার সময় ভুলে যাই যে একটি শিশুর ক্ষমতা এবং আমাদের রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতার থেকে অনেক কম। তবুও শিশুকে আদর করার সময়ে আমরা এতটাই আপ্লুত হয়ে যাই যে, সেই শিশুটি আদর সইতে পারছে কি না, সে বিষয়ে কোনো খোঁজ রাখি না। মার্কিন যুক্তরাষ্ঠের বসবাসকারী মা ক্রিস্টাল হায়েস বিপন্ন হয়েই আবেদন করছেন যে, আপনি আর যাই করুন, বাচ্চাকে চুমু খাবেন না।

একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, ক্রিস্টাল ও তাঁর স্বামী জন গ্রেশ্যাম তাঁদের ১৫ দিন বয়সি শিশুকে নিয়ে বিপদে পড়েছিলেন। শিশুটি ক্রমশ মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে নিয়ে হাসপাতালে যেতে হয়। সেখানে রীতিমতো শিশুটি মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যেতে থাকে। চিকিৎসকরা জানান যে, শিশুটি মেনিনজাইটিসে আক্রান্ত। অথচ ক্রিস্টাল বা জন কিছুতেই ভেবে পারছেন না, কোত্থকে এই মারাত্মক ব্যাধি তাঁদের সন্তানের শরীরে এল। ক্রিস্টালের অন্য একটি ২ বছর বয়সি সন্তানও রয়েছে। তিনি অনেক চিন্তা করে বোঝেন, এই অসুখের মূলে রয়েছে এমন কোনও সংক্রমণ, যা তার সন্তানের মধ্যে সাধারণ ভাবে প্রবেশ করেনি। চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন যে, শিশুকে চুম্বন করা থেকেই এই সংক্রমণ হয়েছে। ক্রিস্টাল শিশুদের আদর করতে ভালবাসেন। এবং আদর করার সময়ে বিস্তর চুমু খান শিশুদের। এই কারণে তাঁর বন্ধু-বান্ধবীরা তাঁকে ‘কিসি আন্টি’ বলে ডাকেন।

ডাক্তারের প্রবল চেষ্টার পরে শিশুটি রোগমুক্ত হয়। ক্রিস্টাল তাঁর স্বভাব পাল্টে ফেলেছেন এবং তিনি স্বীকার করেছেন যে তিনি আর চুমু খেয়ে বাচ্চাদের আদর করতে রাজি নন। সেই সঙ্গে অন্যদেরও জানাচ্ছেন যে তারা যেমন খুশি শিশুদের আদর করুন, কিন্তু কখনোই সদ্যোজাত শিশুকে কোনোভাবেই চুমু খাবেন না। এবং অন্য কাউকে চুমু খেতেও দেবেন না।

Leave a Reply

%d bloggers like this: