দেখতে এই সাধারণ অভ্যাসগুলি আপনার জীবনের শত্রু হতে পারে

যদি আমরা আমাদের দৈনিক রুটিনটি দেখি, আমরা দেখতে পাব যে অনেকগুলি ভূমিকা রয়েছে যা আমরা প্রতিদিন কমপক্ষে করে থাকি এবং তারপর আমরা এই কাজগুলির সুবিধা এবং অসুবিধাগুলিও বিবেচনা করি না। এই ক্ষেত্রে, যদি কেউ এই ধরনের অভ্যেসগুলিতে ক্ষতি সম্বন্ধে বলে, তাহলে আমরা কি চিন্তা করি যে কি করা যেতে পারে? হয়তো না।

আজ, আমরা এই ধরনের জিনিস সম্পর্কে আপনাকে কিছু বলতে যাচ্ছি। এগুলির সম্পর্কে জানা আপনাকে কয়েক মুহূর্তের জন্য অবাক করে দেবে। কারণ এগুলির ধেয়ে এমন কিছু জিনিস আছে যা আপনার জীবন ও ছিনিয়ে নিতে পারে। তাহলে দেরি কেন? আসুন সবটা জেনেনি।

১. টিভি দেখা

একটি গবেষণার মতে, আপনার টিভি দেখার প্রতি ঘন্টায় ২২ মিনিট করে আপনার জীবন কমে যায়। এছাড়াও, যারা প্রতিদিন ৬ ঘন্টা টিভি দেখেন তারা সক্রিয় জীবনধারার ব্যক্তিদের তুলনায় ৫ বছর কম বেঁচে থাকেন।

২. কান পরিষ্কার করা

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন আপনার কানের ময়লা নাকের শ্লেষ্মারের মতো ঝুলে থাকেনা। তাই স্নান করার সময় অতিরিক্ত ময়লা যদি থেকেও থাকে তা ​​পরিষ্কার হয়ে যায় যার ফলে তুলো, কানের বাড বা অন্য কোনো উপায়ে পরিষ্কার করার প্রয়োজন হয় না। এইসব দিয়ে কান পরিষ্কার করলে কানের পর্দা বিস্ফোরিত হতে পারেএবং তার থেকে অনেক ধরনের সংক্রমণ হতে পারে।

৩. অফিসার ডেস্ক এ বসে খাওয়া

একটি গবেষণার মতে, কীবোর্ডে টয়লেট সীটের তুলনায় আরো অনেক বেশি জীবাণু থাকে। ১ মিলিয়ন জীবাণু একটি অফিস ডেস্কে থাকতে পারে। এই পরিস্থিতিতে, আপনি টেবিলের উপর বসে যখন খাওয়া দাও করেন হয়তো অতটা সচেতনও থাকেন না। এটি করার মাধ্যমে, আপনি আপনার শারীরিক কার্যকলাপের ক্ষতি করছেন যার থেকে অনেক গুরুতর রোগ হতে পারে।

৪. নাকের চুল ছেড়া

নাকের চুল নাকের রক্ষাকর্তা। যখন আমরা সেগুলি ছিড়ে দিই , নাক সহজে সংক্রমিত হয়। এই সংক্রমণ শিরার মাধ্যমে মস্তিষ্কে পৌঁছাতে পারে। এর কারণে মেনিনজাইটিস এবং মস্তিষ্ক সম্পর্কিত অনেক মারাত্মক রোগ হতে পারে।

৫. অতিরিক্ত জল পান করা

আমরা সবসময় শুকে থাকি যে জল কম পান করা শরীরের জন্য ভাল নয়। কিন্তু এখনএকটি নতুন জিনিস প্রমাণিত হয়েছে যে খুব বেশি জল পান করলে মানুষ মারাও যেতে পারে। একটি ব্যক্তি যখন অল্প সময়ের মধ্যে কয়েক লিটার জলপান করেন, তখন এটি একটি আসক্তি হয়ে দাঁড়ায়। এই ক্ষেত্রে, ব্যক্তির অনেক গুরুতর রোগ হতে পারে।

৬. দাঁত পরিষ্কার করা

খাবার খাওয়ার পর অনেক লোকের টুথপিক দিয়ে দাঁত খোঁচানোর অভ্যাস থাকে। কিন্তু এটি দাঁত পরিষ্কার করার সঠিক উপায় নয়। এটি আপনার মাড়িতে ক্ষতি করতে পারে এবং সংক্রমিতও করতে পারে। তাছাড়া টুথপিক বেশ ছুঁচোলো হয়; যদি এটি ভেঙ্গে যায় এবং আপনার দাঁতের ভিতরে রয়ে যায় তবে এটি অনেক কষ্ট দিতে পারে।

৭. ব্যায়াম না করা

আমাদের অনেকের মনে হয় রোজ ওঁৎ ব্যায়াম না করলেও হবে। বিশেষজ্ঞদের মতে সবচেয়ে বড় হত্যাকারী হল অনিয়মিত শরীর চর্চা করা। প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যায়াম কোনও রোগের দৈনিক প্রবণতাকে ২৫% পর্যন্ত হ্রাস করে। কিন্তু দিনে বসে গেলে এই পরিস্থিতি আরো বাড়িয়ে দেয়।

৮. অতিরিক্ত বেশি খাওয়া

অনেক মানুষ বলে, আমি অনেক খেয়ে ফেললাম মনে হচ্ছে যেন পেট ফেটে যাবে। আমি আপনাকে বলি যে এটি শুনতে বা ভাবতে হাস্যকর লাগতে পারে যে পেট ফেটে যাবে, কিন্তু অতিরিক্ত খেলে সেটি হতেই পারে। ডাক্তারদের মতে, এটি বিরল, কিন্তু এটি ঘটতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে এমন রিপোর্ট রয়েছে যেখানে বলা হয়েছে যে একজন মানুষ খাবার পর পেটে ব্যথা হওয়ার ফলেই মারা গেছেন।

৯. মাছ খাওয়া

মাছ সবসময়েই একটি স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্য বলে বিবেচিত করা হয়। কিন্তু সব মাছ নয়। যেই মাছে পারদ পরিমান কম থাকে সেগুলি খাওয়া ক্ষতিকারক নয়, কিন্তু যার মধ্যে পারদ পরিমাণ উচ্চ, সেগুলি খাদ্য হিসেবে ক্ষতিকারক।

১০. দাঁত দিয়ে নখ কাটা

আমরা সবাই জানি যে আমাদের হাত সারাদিন নানা জিনিস ছুঁয়ে থাকে। অনেক জীবাণু আমাদের নখগুলিতেও জমা হয়। যখন আমরা মুখের মধ্যে নখ দিই, এটি অনেক সংক্রমণ, পেট ব্যথা এবং ডায়রিয়ার মত রোগ উত্পন্ন করে। নখ চিবোনোর মাধ্যমে, ই কোলি নামক ব্যাকটেরিয়াটি আমাদের দেহে প্রবেশ করতে পারে, যার ফলে কেউ খুব অসুস্থ হতে পারে। এটি কিডনি ক্ষতির কারণ বলে প্রমাণিত হয়েছে।

আপনি যদি এই অভ্যাসগুলির কোনও একটিও রাখেন, তাহলে আজই সতর্ক থাকুন। এছাড়াও আপনার বন্ধু বান্ধবদের সতর্ক করুন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: