ঘি খাওয়ার উপকারিতা জানুন

প্যাক করা মাখন বা মার্জারিনের যুগে ঘি-এর কথা খুব কম লোকেই মনে রেখেছেন। কিন্তু গরম ভাতে দু’ফোঁটা গরম ঘি পড়লে কোথায় লাগে হাজার রকম পদের খাবার। শুধু স্বাদে নয়, গুণেও কিন্তু ঘি বেশ বৈচিত্রপূর্ণ। ঘি যে আজকের খাবার নয়, সে কথা সবার জানা। আর এই গুণগুলোর কথা মনে রেখেই তৈরি হয়েছিল ঘি। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, সম্প্রতি চিকিৎসকরাও এই গুণের কথা স্বীকার করেছেন। আপনিও জেনে নিন ঘি-এর কী উপকারিতা কী কী:,

• ঘি-এর মধ্যে কিছু হেলদি ফ্যাট থাকে। এর ফলে ওজন বাড়ে না, কিন্তু শরীরকে সতেজ রাখে। তাই ডায়েটেশিয়ানরাও এবং যোগ বিশেষজ্ঞরাও ঘি খাওয়ার পরামর্শ দেন।

• একটু ঘি ভাত থেলে, শরীরে তার এনার্জি অনেকক্ষণ ধরেই থাকে।

• ঘি-তে এক ধরনের ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে, যা হজমে সাহায্য করে। ঘি কোলেস্টেরল কমাতেও সাহায্য করে বলে জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা।

• যোগ বিশেষজ্ঞরা, ডায়েট চার্টে ঘি রাখতে বলেন, কারণ এই ঘি খেলেই শরীরে নমনীয়তা বৃদ্ধি পায়। গাঁটের ব্যথাও দূর হয় ঘি থেকে।

• আয়ুর্বেদিক মতে, ঘি মস্তিষ্কের জন্যও খুব উপকারী। স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে ঘি অত্যন্ত উপকারী বলে মনে করেন আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকরা।

• ঘি-তে ভিটামিন এ, ডি এবং ই থাকে। ভিটামিন এ চোখ ও ত্বক ভাল রাখে। ভিটামিন ডি-তে হাড় মজবুত হয়। ভিটামিন ই-তে হার্ট ভাল থাকে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: