কোন সময়ে খাবার খাবেন না

অনেকেরই খাওয়াদাওয়ার জন্য কোনো সময়সূচি মানেন না। যখন মনে হয় তখন খান, আবার কখনো কখনো একবেলার খাবার বাদ। এই ধরনের খাদ্যাভ্যাসের নানা খারাপ দিক আছে। শুধুমাত্র কী খেলাম সেটা সুস্থতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়, কখন খেলাম সেটাও সমান গুরুত্বপূর্ণ।

আমাদের শরীরের নানা রকমের হরমোন ও রাসায়নিক উপাদান হজম, খিদে নিয়ন্ত্রণ করে। আনিয়মিত খাদ্যাভ্যাস এই ছন্দকে ব্যাহত করে। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে বিশৃঙ্খল খাদ্যাভ্যাস ওজন বৃদ্ধি, টাইপ-টু ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি বাড়ায়। আবার সময়মতো না খেলেও নির্দিষ্ট সময়ে কিন্তু ঠিকই পাচক রস, অম্ল ইত্যাদি নিঃসৃত হয়ে যায়। ফলে বদহজম হয়, অ্যাসিডিটি হয়।

কেমন হবে খাবার খাওয়ার সময়সূচি?

খাদ্যাভ্যাসে কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলা উচিত

১. সকালের খাবার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ সকালবেলাতেই আমাদের বিপাকক্রিয়া শুরু হয়, হরমোনের মাত্রাও এ সময় বেশি থাকে। সকালের খাবার ভালো হয় যদি ৯ টার মধ্যে সেরে ফেলা যায়।

২. দুপুরে খাওয়ার সঠিক সময় ১২টা থেকে ১টা। সকালের খাবারে মোটামুটি পেট ভরে খেলে দুপুরের খাবারটা মাঝারি পরিমাণের হওয়া উচিত।

৩. সবচেয়ে ভালো হয় যদি রাতের খাবার ৭ টার মধ্যে সেরে ফেলা যায়। দেরি করে রাতের খাবার গ্রহণের সঙ্গে শরীরের ওজন বৃদ্ধির সম্পর্ক আছে। অন্তত ঘুমানোর ঘণ্টা তিনেক আগে রাতের খাবার সেরে ফেলুন।

৪. ব্যায়াম করার অন্তত ৪৫ মিনিট পর খাবার খাওয়া উচিত।

৫. প্রতিদিন একই সময়ে খাওয়ার অভ্যাস করুন। ভিন্ন ভিন্ন সময়ে খেলে শারীরিক ক্ষতির সম্ভাবনা বেশি।

Leave a Reply

%d bloggers like this: