শিশু কি পড়া মনে রাখতে পারেনা? তাহলে উপায়?

শিশুরা কমবেশি দুষ্টুমিতে সবাই মেতে থাকে। ক্লাসের পড়ায় মন বসে না। জোর করে পড়তে বসালেও আত্মস্থ হওয়া কঠিন। যাও বা মুখস্ত করে তাও খুব সহজে হয় না। এদিকে পরীক্ষার হল বা শিক্ষকের সামনে গিয়ে সব ভুলে বসে। এধরনের সমস্যা অধিকাংশ শিশুদের মধ্যে দেখা যায়। পড়া লেখায় অমনোযোগীতা তাদের ভবিষ্যতকে করে প্রশ্নবিদ্ধ। সুন্দর একটি ভবিষ্যৎ পেতে লেখাপড়ায় অবহেলা নয়; বরং পড়া আত্মস্থ করাতে জেনে নিতে পারেন প্রয়োজনীয় কিছু কৌশল। যেমন-

সময় নির্বাচন

কঠিন কিছু শিখতে হলে বাচ্চাকে জোর করে পড়ার টেবিলে বসাবেন না। যখন ওর অন্যদিকে কোনো মন থাকবেনা, যেমন খেলতে যাওয়া, বা টিভির কোনো বিশেষ সিরিয়াল, শুধুমাত্র তখনই চেষ্টা করুন। যখন সে শেখার জন্য খুব আগ্রহ বোধ করছে তখন বিষয়টি নিয়ে বসে যান। এতে পড়া সহজে মনে থাকবে বাচ্চার।

পর্যাপ্ত সময় দিন

কোনো বিষয়ে পড়ার পর তথ্যগুলো গুছিয়ে সংরক্ষণ করতে বাচ্চার মস্তিষ্ককে কিছু সময় দেওয়া উচিৎ। মূলত বাচ্চাদের ঘুমের সময়ে মস্তিষ্ক এই কাজটি করে। তাই চেষ্টা করুন শিশুকে খুব কঠিন কিছু পড়ানোর পর ১০ মিনিট ঘুমোতে দিতে। এই সময়ে মস্তিষ্ক সব তথ্য সুন্দরভাবে গুছিয়ে নেবে। সম্ভব না হলে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে সমস্ত পড়া অবশ্যই একবার পড়ে ঘুমাতে বলুন।

বুঝে পড়া

কঠিন পড়াগুলো জোরে জোরে উচ্চারণ করে পড়তে বলুন। পড়ার সময় নিজের উচ্চারিত শব্দগুলো বাচ্চার মন দিয়ে শোনা প্রয়োজন। একই সঙ্গে বিষয়টি বোঝার চেষ্টাও করতে হবে তাদের। যে অংশ বুঝতে পারবে না, সেটি বার বার করে বুঝিয়ে আবার পড়তে বলুন। তাহলে দেখবেন পড়া আপনার শিশুর জন্য অনেক সহজ হয়ে গেছে।

লিখে পড়ার অভ্যাস

যখনই যেটা পড়াবেন, সেটা লেখানোর চেষ্টা করুন। পড়ার সময় দেখে হলেও লিখতে বলুন। তবে মুখস্ত করার পর একবার নিজের মতো করে লিখতে বলুন। এতে শিশুর পড়ার বিষয়টি রপ্ত হয়ে যাবে সহজেই।

বিশেষ কিছু কৌশল

পড়াটি মাথায় ধরে রাখতে শিশুর জন্যে ছোট্ট কিছু কৌশল অবলম্বন করতে পারেন। যেমন- পড়াটি না শেখা পর্যন্ত টেবিল ছেড়ে উঠতে দেবেন না। কিংবা এটা শেখা হলে একটু কিছু খেতে দিন বা মিনিট পাঁচেক গল্প করুন। এমন কিছু কিছু সিদ্ধান্ত আপনার শিশুর পড়ার জন্য তাগিদ দেবে। এতে পড়ার জন্য ওদের আগ্রহও বেড়ে যায় অনেক বেশি।

Leave a Reply

%d bloggers like this: