আলসেমি! কেন এমন হচ্ছে জানুন

আপনি কি নিজের মধ্যে আলসেমি লক্ষ্য করেছেন, সকালে ব্রেকফাস্ট করে অফিসে বেরোচ্ছেন, দুপুরেও সময় মত খেয়ে নিচ্ছেন। তবুও শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। সব রকমের চেষ্টা করেও, কাজ কিছুই হচ্ছে না। যদি এমন হয়, তাহলে কিন্তু বেশ চিন্তারই বিষয়।

কীভাবে বুঝবেন, আপনার শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি রয়েছে

যদি অত্যধিক পরিমাণে চুল পড়তে শুরু করে প্রতিদিন, তাহলে বুঝতে হবে আপনার শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি রয়েছে। অল্পেতেই যদি হাপিয়ে ওঠেন, তাহলেও শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি রয়েছে বলে বুঝতে হবে। প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় যদি উপযুক্ত পরিমাণ প্রোটিন না থাকে, তাহলে দেখা যাবে, অল্প কাজেই হাপিয়ে উঠছেন আপনি। যদি বার বার খিদে পায়, তাহলে বুঝতে হবে প্রোটিনের অভাব রয়েছে শরীরে। খাবার পরেও যদি বার বার খিদে পেতে শুরু করে, তাহলে শরীরে প্রোটিনের অভাব রয়েছে বলে বুঝে নিতে হবে।

চা-এ চিনি খাচ্ছেন কিংবা কফিতে চিনি খাচ্ছেন। অথবা প্রতিদিন বেশ টপাটপ করে মিষ্টি খেয়ে ফেলছেন, এমন যদি হয়, তাহলেও বুঝতে হবে আপনার শরীরে প্রোটিনের অভাব রয়েছে। আর সেই কারণেই বার বার মিষ্টি খেতে ইচ্ছে করছে আপনার।

খাওয়ার পর যদি আলসেমি বোধ হয় শরীরে, তাহলে কিন্তু একেবারেই ভাল লক্ষণ নয়। শরীরে যাতে প্রোটিনের অভাব না হয়, তার জন্য সকালে সঠিক খাবার খান। ব্রেড টোস্ট, ডিম, দই, বাদাম এবং ফল দিয়েই ব্রেকফাস্ট করুন।

শরীরের কোনও অংশে কেটে গেলে, যদি ক্ষত শুকোতে না চায়, তাহলেও কিন্তু প্রোটিনের অভাব রয়েছে বলে মনে করতে হবে। তাই কোথাও কেটে গেলে যদি ক্ষত না শুকিয়ে আরও গভীর হয়, তাহলে আরও প্রোটিনযুক্ত খাবার আপনাকে খেতে হবে।

যদি বার বার অসুস্থ হতে শুরু করেন, তাহলেও শরীরে প্রোটিনের অভাব রয়েছে বলে মনে করতে হবে। শরীরে প্রতিরোধক ক্ষমতা যদি কমে যায়, তাহলে প্রোটিনের অভাব রয়েছে বলেই ধরে নিতে হবে। 

Leave a Reply

%d bloggers like this: