অনিয়মিত মাসিকের লক্ষণ কি কি?

অনিয়মিত মাসিক বা ঋতুস্রাব নারীদের খুব পরিচিত বিষয়। বিশেষ করে কিশোরীদের মধ্যে এই সমস্যা বেশি দেখা যায়। এই নিয়ে কিশোরীরা দুশ্চিন্তায় ভোগেন। নিয়মিত ঋতুচক্র প্রতিমাসে দুই থেকে সাত দিন স্থায়ী থাকে। বেশিরভাগ নারী প্রতিমাসের ২৮ তারিখের সাতদিন পূর্বে অথবা সাতদিন পরে ঋতুস্রাবের মুখোমুখি হয়। প্রতি ঋতুস্রাবে গড় রক্তক্ষরণের মাত্রা …৬০ থেকে ১০০ মিলিগ্রাম। এর অধিক রক্তক্ষরণ হলে সেটাকে অনিয়ন্ত্রিত ঋতুস্রাব হিসেবে ধরে নেওয়া হয়।  

অনিয়মিত মাসিক হওয়ার ১১টি কারণ
লক্ষণ

১. মাসে ২/৩ বার মাসিক বা ঋতুস্রাব হতে পারে

২. শুরু হওয়ার ১/২ দিন পরই শেষ হয়ে যায় এবং কয়েকদিন পর আবার শুরু হয়

৩. একনাগাড়ে অনেকদিন ধরে চলতে পারে

৪. কোনো কোনো সময় স্বল্পকালীন মাসিক দেখা যায় এবং পরবর্তীতে মাসিক শুরু হলে তা প্রায় ২/৩ মাস পর্যন্ত চলতে থাকে

৫. রক্তস্বল্পতা বা এনিমিয়া দেখা দিতে পারে

৬. ক্ষুধামন্দা ও শরীর দুর্বল বোধ হয়

৭. মেজাজ খিটখিটে ও অশ্বস্তি বোধ

৮. রুগ্নতা ও সাংসারিক অশান্তি দেখা দিতে পারে৷

অনিয়মিত মাসিকের ফলে নানা জটিলতা দেখা দেয়; যেমন 

 

১. সন্তান ধারণে অক্ষমতা বা বন্ধ্যাত্ব দেখা যেতে পারে

২. অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণ হতে পারে

৩. টিউমার ও ক্যান্সারজনিত হলে সময়মতো উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে মৃত্যুও হতে পারে

অনিয়মিত মাসিক থেকে রক্ষা পেতে কি কি করবেন?

Leave a Reply

%d bloggers like this: