অনিয়মিত মাসিক থেকে রক্ষা পেতে কি কি করবেন?

অনিয়মিত মাসিক বা ঋতুস্রাব নারীদের খুব পরিচিত বিষয়। বিশেষ করে কিশোরীদের মধ্যে এই সমস্যা বেশি দেখা যায়। এ নিয়ে কিশোরীরা দুশ্চিন্তায় ভোগেন। নিয়মিত ঋতুচক্র প্রতিমাসে দুই থেকে সাত দিন স্থায়ী থাকে। বেশিরভাগ নারী প্রতিমাসের ২৮ তারিখের সাতদিন পূর্বে অথবা সাতদিন পরে ঋতুস্রাবের মুখোমুখি হয়। প্রতি ঋতুস্রাবে গড় রক্তক্ষরণের মাত্রা …৬০ থেকে ১০০ মিলিগ্রাম। এর অধিক রক্তক্ষরণ হলে সেটাকে অনিয়ন্ত্রিত ঋতুস্রাব হিসেবে ধরে নেওয়া হয়।

অনিয়মিত মাসিক হওয়ার ১১টি কারণ
অনিয়মিত ঋতুস্রাব বন্ধে যা করা উচিত

১. প্রচুর পরিমাণে জলপান করুন এবং নিজেকে ঠান্ডা রাখুন।

২. বিবাহিতরা জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ বন্ধ করবেন না। কারণ এই সময়ে গর্ভধারণের ঝুঁকি থেকেই যায়। যদি আপনি জন্ম নিয়ন্ত্রণের বড়ি নিয়মিত গ্রহণ করেন। সেক্ষেত্রে এটা আপনার ঋতুস্রাব বন্ধ হবার পরও চালিয়ে যেতে হবে।

৩. শারীরিক এবং মানসিক চাপ কমিয়ে ফেলুন। নিয়মিত শরীর চর্চা, সুষম খাদ্য গ্রহণ করুন এবং ক্যাফেইন জাতীয় খাবার পরিহার করুন।

৪. প্রতিদিন ক্যালসিয়ামের অভাব পূরণ করে (ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট) এরকম ওষুধ সেবন করুন।

৫. সম্পূর্ণরূপে বিশ্রামে থাকতে হবে এবং পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে

৬. মানসিকভাবে আস্বস্ত হতে হবে।

৭. রক্তস্বল্পতা দেখা দিলে রক্ত দিতে হবে

৮. পুষ্টিকর খাবার ও হালকা ব্যায়াম করতে হবে

হোমিওপ্যাথিক চিকিত্সা 

সাধারণ রোগ সমূহের মত হোমিওতে এটা একেবারেই সাধারণ বিষয়। বিলম্ব না করে আপনার হোমিওপ্যাথের সাথে কথা বলুন এবং চিকিত্সা নিন, খুব তাড়াতাড়িই সুস্থ হয়ে যাবেন। 

Leave a Reply

%d bloggers like this: